লালা ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞার পর আসছে কোভিড-১৯ সাব

লালা ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞার পর আসছে কোভিড-১৯ সাব

ক্রীড়া ডেস্ক:-করোনা পরবর্তীতে ক্রিকেটারদের সুরক্ষার কথা বিবেচনা করে আইসিসি একটা গাইডলাইন প্রণয়ন করেছিল। যেখানে বলের শাইন বাড়াতে লালার ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছিল। এছাড়াও টেস্ট ম্যাচে কোভিড-১৯ সাবের প্রস্তাব তুলে আসছিল ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড। আজ (৯ জুন) আইসিসির চিফ এক্সিকিউটিভ কমিটি (সিইসি) এক বিবৃতিতে কোভিড-১৯ সাব দেওয়ার বিষয়ে নিশ্চিত করেছে। একইভাবে বলে লালা ব্যবহারের জন্য রান জরিমানা করার পরিকল্পনার বিষয়ে জানিয়েছে। এছাড়াও আরো কিছু অভ্যন্তরীণ পরিবর্তন এনেছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটার অনিল কুম্বলে পরিচালিত গ্লোবাল বডি ক্রিকেট কমিটি ক্রিকেটার ও ম্যাচ অফিসিয়ালদের সুরক্ষার জন্য লালার ব্যবহার, কোভিড-১৯ সাব, হোম আম্পায়ার দিয়ে ম্যাচ পরিচালনার বিষয়ে সুপারিশ করেছিল। আইসিসিও সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় ক্রিকেটে এগুলো নতুন করে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছে।

কোভিড-১৯ সাব নিয়ে সিইসির পক্ষ হতে জানানো হয়েছে, কেবলমাত্র টেস্ট ম্যাচের জন্য এই সাবস্টিটিউশন প্রযোজ্য। এক্ষেত্রে কোনো ক্রিকেটারের যদি টেস্ট চলাকালীন করোনার উপসর্গ দেখা যায়, তবে ম্যাচ রেফারি কনকাশন সাবের মতো লাইক-ফর-লাইকের ভিত্তিতে বদলি খেলোয়াড় নামাতে দিতে পারবেন। তবে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ম্যাচে কোভিড-১৯ সাব প্রযোজ্য হবে না।

বলে লালা ব্যবহারের নিষেধাজ্ঞা নিয়ে সিইসি জানিয়েছে, বলের শাইন বাড়াতে কোনো ক্রিকেটার কোনো ভাবে লালা ব্যবহার করতে পারবে না। যদি কোনো খেলোয়াড় বলে লালা লাগিয়ে ফেলেন তবে মাঠে উপস্থিত আম্পায়ার নিজের মতো করে অবস্থার ব্যবস্থা নিবেন। তবে শুরুতে অনেকে ভুলেই বলে লালা লাগিয়ে ফেলতে পারে। সেক্ষেত্রে আম্পায়ার বলটি পরিষ্কার করে দেবেন। তবে কেউ যদি ইচ্ছা করে সুবিধা নিতে বারবার বলে লালা লাগায়। তবে ব্যাটসম্যান দলকে ৫ রান সুবিধা দেওয়া হবে।

ক্রিকেটে এতদিন নিরপেক্ষ ম্যাচ অফিসিয়াল থাকার বাধ্যবাধকতা ছিল। তবে ভ্রমণ সংক্রান্ত জটিলতার জন্য এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে আইসিসি’র সিইসি। হোম ম্যাচ অফিসিয়ালই খেলা পরিচালনা করতে পারবে। তবে অবশ্যই আইসিসির এলিট ও আন্তর্জাতিক প্যানেলের ম্যাচ অফিসিয়াল হতে হবে তাকে। এদিকে আইসিসির ক্রিকেট অপারেশন টিম ভিডিও কলের মাধ্যমে ম্যাচ অফসিয়ালদের সহযোগিতা করবে।

এদিকে ভ্রমণ সংক্রান্ত জটিলতার কারণে ম্যাচে অভিজ্ঞ আম্পায়ার দেওয়া সম্ভব হবে না। ফলে ম্যাচে ডিআরএসের সংখ্যায় পরিবর্তন আনতে চাইছে আইসিসি। টেস্টে প্রতি ৮০ ওভারে একদল সর্বোচ্চ দুটি ডিআরএস সুবিধা পেত। সেই সংখ্যা তিনে বাড়ানোর পরিকল্পনা করেছে আইসিসি। আর সাদা বলের ক্রিকেটের জন্য সংখ্যাটা করা হয়েছে দুই।

সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: কামাল উদ্দিন
মোবাইল: ০১৮১৯০৩২০৯০
৬০/বি, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০ হইতে প্রকাশিত। মোবাইল: 01819032090, ইমেইল: amaderodhikar@gmail.com